Tue. May 28th, 2024

এক করোনা যোদ্ধার গল্প

By Desk Team Jun 15, 2021

আচ্ছা আপনার কৃষ্ণেন্দু ভট্টাচার্য্য কে মনে আছে ? হা সেই কৃষ্ণেন্দু ভট্টাচার্য্য যিনি আগের বারের করোনা এর প্রথম ঢেউ এর সময় খড়দা এবং তার আসে পাশের অঞ্চলে একজন কোভিড ভলেন্টীর বা করোনা ওয়ারিয়র হিসেবে কাজ করে মানুষের নজর কেড়ে নিয়েছিলেন। আর্থিক ভাবে দুর্গত মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন রেশন বা রান্না করা খাবার। আমফন এর সময় ও তিনি ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার বহু জায়গায়। আপনি জানলে অবাক হবেন কোরোনার প্রথম ঢেউ এ তিনি নিজেও মানুষের সেবা করার সময় আক্রান্ত হয়ে পড়েন এই প্রাণঘাতী ভয়ঙ্কর রোগে। মানুষের সেই প্রচন্ড বিপদের দিনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লড়াই চালিয়ে গিয়েছিলেন মানুষের জন্য। তিনি এবারের কোরোনার দ্বিতীয় ঢেউ এর সময়ও স্বমহিমায়। সম্পূর্ণ নিজের ব্যক্তিগত উদ্যোগে তিনি চালিয়ে যাচ্ছেন মানুষের সেবা। না কোনো সংগঠন বা কোনো এনজিও নয় সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে কিছু মানুষকে পাশে নিয়ে কখনো অক্সিজেন সিলিন্ডার কখনো ওষুধ বা কখনো কাউকে হাসপাতাল এ ভর্তি করানো। কখনো বৈশাখের চড়া রোদ তো কোখনো মধ্যরাত সব সময় তার ফোন বেজেই চলেছে। মানুষের সেবার পাশাপাশি চলছে নিজের চাকরি সামলানোর কাজ। পেশায় এক টেলিকম কোম্পানির সেলস ম্যানেজার। ফোন এলো বরানগরের এক বৃদ্ধ্য দম্পতি দুজনেই করোনা আক্রান্ত। অক্সিজেন এর অভাব। কেউ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার নেই। কোনো সাহায্য নেই। ভয়ে পাড়ার কোনো লোক এগোচ্ছেন না এই ভয়ঙ্কর মহামারীর সামনে। আর সেখানেই পৌঁছে গেলেন কৃষ্ণেন্দু এবং তার টীম। ভর্তি করা হলো হাসপাতাল- এ। পেলেন অক্সিজেন। তারা এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।
প্রায় দিনই অনেক ফোন। হাসপাতাল এ বেড নেই। ডাক্তার নেই। রোগীর বাড়ির লোকের প্রশ্ন কি খাওয়াবো কি করবো। অ
অনলাইন এ ভিডিও কল এর মাধ্যমে বাতলে দিলেন কি কি করতে হবে। মানুষ যাতে আতঙ্কিত হয়ে না পড়েন তিনি তার ফোন নম্বর ছড়িয়ে দিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। আবার এবার করণের দ্বিতীয় ঢেউ এর সাথে তিনি তার লড়াই জারি রেখেছেন মানবতার উদ্দেশে। মানব সেবার এক অনন্য নজির গড়ে তুলেছেন খড়দার মহাপ্রভু মন্দির এলাকার বাসিন্দা কৃষ্ণেন্দু ভট্টাচার্য্য ওরফে মিনটু দা।
এখানেই শেষ নয় – এবারের যশ বিদ্ধস্ত এলাকায় পৌঁছে দিচ্ছেন ত্রাণ এবং আরো অন্নান্ন সামাজিক কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত আছেন তিনি , তাই আমাদের এবারের অফবীট কলাম এ তুলে ধরলাম তার মানবসেবা মূলক কাজ। আমরা টিবিএইচ বাংলা ডিজিটাল ম্যাগাজিনের তরফ থেকে জানাই কুর্নিশ।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *