Sun. May 26th, 2024

আমি আমার গানের মধ্যে দিয়ে দর্শকদের মনে আনন্দ দিতে চাই” : অর্পিতা চক্রবর্তী।

By Desk Team Jul 22, 2021

বাঁকুড়ার মেয়ে অর্পিতা চক্রবর্তীর কথা মনে আছে, মনে থাকবে নাই বা কেন? জি বাংলা সারেগামাপা এর মঞ্চে লোকগানের ছন্দে আপামর বাঙালীদের মনে বিশেষ জায়গা করে নিয়েছেন এই শিল্পী। আজ আমরা জানবো এই শিল্পীর কথা :-
বিখ্যাত চিত্রশিল্পী যামিনী রায়ের গ্রাম বাঁকুড়ার বেলিয়াতোড়ে জন্ম হয় শিল্পী অর্পিতা চক্রবর্তীর। তার পূর্বপুরুষের সূত্রে গান গাওয়ার রীতি আছে। তার বাবা লোকসংগীত শিল্পী শ্রী সুভাষ চক্রবর্তী যিনি ‘লাল পাহাড়ির দেশে যা’ গানটির সুরকার। শ্রী সুভাষ চক্রবর্তী অসংখ্য লোক গান গেয়েছেন এবং তার সুর করেছেন। তবে শ্রী সুভাষ চক্রবর্তীর কাজ শুরু ভি.বালসারাজীর হাত ধরে ১৯৭৯ সাল থেকে।

জি বাংলা সারেগামাপা এর মঞ্চে পারফর্মরত অর্পিতা চক্রবর্তী।


ছোটবেলা থেকেই শিল্পী অর্পিতা পুরুলিয়ার বিশেষ লোকসংগীত ধারা ঝুমুর, ভাদুর এই গানের পরিমণ্ডলে বড়ো হন। তিনি নিজেও ছোটবেলায় এই ভাদু, টুসু, গান গেয়ে বড়ো হয়েছেন। ছোটবেলা থেকে লোকগানের প্রতি তার আকর্ষণ ছিল এবং সেই ভালোবাসা বা আকর্ষণ থেকেই তার লোকশিল্পী হিসেবে উঠে আসা।
অর্পিতা নবম শ্রেণী পর্যন্ত শাস্ত্রীয় সংগীত শিখেছিলেন। এরপর মাধ্যমিকের প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য শাস্ত্রীয় সংগীতের তালিম নেওয়া তার সেই সময় আর হয়ে ওঠেনি। বাড়িতে লেখাপড়ার সাথে সাথে লোকগীতি ও লোকসংগীতের নিয়মিত চর্চা করতেন এবং এখনও করেন। বাংলায় স্নাতক পাশ করবার পর তিনি কলকাতা রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মিউজিক নিয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। বর্তমানে তিনি পিএইচডি করছেন।
কলকাতা দূরদর্শনে ২০১৪ সালের ১৬ই ডিসেম্বর অর্পিতা প্রথম গান গেয়েছিলেন। এরপর বিভিন্ন বেসরকারি টিভি চ্যানেলে তিনি অসংখ্য গান গেয়েছেন।

বাংলা সারেগামাপা এর বিচারক মিকা সিংয়ের সঙ্গে অর্পিতা চক্রবর্তী।


সারেগামাপা এর অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন এই ছয় মাসের গ্রুমিং তাকে অনেকটাই সাহায্য করছে একজন পরিনত গায়িকা হিসেবে নিজেকে তুলে ধরার ক্ষেত্রে। গানের বিভিন্ন টেকনিক, কিভাবে পারফর্ম্যান্স আরো ভালো করা যায় সে বিষয়ে তিনি গ্রুমারদের কাছ থেকে ভালভাবে শিখতে, বুঝতে, জানতে পারেন।
তিনি জানান দর্শকদের আনন্দ দেওয়াই তার গান গাওয়ার মূল উদ্দেশ্য।
অর্পিতা ‘আউল বাউল’ নামে একটি মিউজিক ব্যান্ড গঠন করেছেন যেখানে তার দাদা অর্পণ চক্রবর্তীও তার সাথে গান গান। এই মিউজিক্যাল ব্যান্ডে মোট ৬ জন মিউজিশিয়ান। সবমিলিয়ে আউল বাউল মিউজিক্যাল ব্যান্ড মোট সদস্য সংখ্যা ৮ জন।

জি বাংলা সারেগামাপা এর মঞ্চে পারফর্মরত অর্পিতা চক্রবর্তী।


তার আগামী প্রজেক্ট সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান আগামী ২৫শে জুলাই তাঁর গাওয়া বিহুগান এর সোলো মিউজিক ভিডিও ‘বিহু’ তার ইউটিউব চ্যানেল ‘Artchala Music’ থেকে মুক্তি পাবে। জি বাংলা সারেগামাপা এর প্রতিযোগীদের সাথে যৌথ উদ্যোগে তিনি বিভিন্ন লোকগান নিয়ে কাজ করতে চলেছেন।
অর্পিতা ভবিষ্যতে একটি মিউজিক প্রোডাকশন কোম্পানি খুলতে চান।

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *